কল্যাণের আজব পাল্টি, “কটা পেট্রোল পাম্প করেছিস” থেকে “আমি শুভেন্দুকে ভালবাসি”

1410
কল্যাণের পাল্টি,
কল্যাণের পাল্টি, "কটা পেট্রোল পাম্প করেছিস" থেকে "আমি শুভেন্দুকে ভালবাসি"

কল্যাণের আজব পাল্টি, “কটা পেট্রোল পাম্প করেছিস” থেকে; “আমি শুভেন্দুকে ভালবাসি”। ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে এবার পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর প্রশংসায়; তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। দুদিন আগেই, শুভেন্দুকে আ’ক্রমণ করে; বক্তব্য রাখেন কল্যাণ। “মমতা না থাকলে পুরসভার কাছে; আলু বিক্রি করতিস”; নাম না করেই, শুভেন্দুকে বে’নজির আ’ক্রমণ করেন কল্যাণ। শুধু তাই নয়; শুভেন্দুর নাম না করে, পরিষ্কার বললেন; “কটা পেট্রোল পাম্প করেছিস; মমতার নামে”। তাঁর এই বক্তব্যে চমকে ওঠেন; জনসভায় হাজির থাকা সবাই। কিন্তু বক্তব্যে স্পষ্ট, কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের নি’শানায় ফের; পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূল নেতা। সেই কল্যাণ এদিন বললেন; “শুভেন্দুকে সবাই ভালবাসে”।

গত বৃহস্পতিবার একটি অনুষ্ঠানে শুভেন্দুকে তাঁর খোঁচা; “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না থাকলে; পুরসভার কাছে আলু বিক্রি করতিস। কটা পেট্রোল পাম্প করেছিস”। কল্যাণের এই বক্তব্যে শোরগোল পড়ে যায়; বাংলার রাজনীতিতে। শুক্রবার হুগলীর বলাগড়ে এর জবাব দেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক। পরিষ্কার বলেন, “সিপিএমের অনিল বসু বাজে কথা বলেছিলেন; তাঁকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে মানুষ। কেউ আমাকে বা আমার পরিবার নিয়ে নোংরা কথা বললে; মানুষ তাঁকে গ্রহণ করবে না”।

এই প্রসঙ্গে আরও পড়ুনঃ “মমতা না থাকলে পুরসভার কাছে আলু বিক্রি করতিস”, শুভেন্দুকে বে’নজির আ’ক্রমণ কল্যাণের

শুভেন্দুর উদ্দেশ্যে কয়েকদিন আগেই; আ’ক্রমণ শা’নিয়েছেন কল্যাণ। তাঁর হুঁ’শিয়ারি ছিল, “বে’ইমানি করলে খ’তম করে দেব”। ইঙ্গিতপূর্ণ ভাবে কল্যাণবাবু বলেন; “যাঁরা তৃণমূলে থাকতে চান না; অনেক দল আছে সেখানে চলে যান। হয় তৃণমূলে থাকুন; নইলে বিজেপিতে যান। দুজনের সঙ্গে একই সঙ্গে; প্রেম করা ঠিক নয়”। কল্যাণবাবু বলেন, “আজকে অনেকে বড় হতে পারেন। কিন্তু কার ছায়ায় বড় হলেন সেটা দেখতে হবে”। বারবার শুভেন্দুকে আ’ক্রমণ করেছেন কল্যাণ।

এই প্রসঙ্গে আরও পড়ুনঃ “শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূল ছাড়লে, কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কেই কালীঘাটে আলু পেঁয়াজ বেচতে হবে”

শুক্রবার তৃণমূল কংগ্রেসের সব পেজেই; কল্যাণের ছবি দিয়ে তাঁর বক্তব্য পেশ করা হয়। সেখানে দেখা গেছে, তিনি বলেছেন; “শুভেন্দুকে সবাই ভালবাসে; আমিও ভালবাসি। আমি শিশির অধিকারীকেও ভালবাসি”। এরপরেই কল্যাণের পুরো পাল্টি খাওয়া নিয়ে; সোশ্যাল মিডিয়ায় রসিকতা শুরু হয়ে যায়। বাংলার রাজনৈতিক মহল বলছে, মমতার নির্দেশেই শুভেন্দুকে ফিরে পেতে; প্রায় ভুল স্বীকার কল্যাণের।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন