করোনায় ধুঁকছে ট্যুরিসম ইন্ডাস্ট্রি, ঘুরে দাঁড়ানো কি সম্ভব

1075
করোনায় ধুঁকছে ট্যুরিসম ইন্ডাস্ট্রি, ঘুরে দাঁড়ানো কি সম্ভব

করোনায় ধুঁকছে ট্যুরিসম ইন্ডাস্ট্রি; ঘুরে দাঁড়ানো কি সম্ভব? বিগত তিন মাস ধরে; আমরা সবাই বাড়ির মধ্যে বন্দি। ঘুরতে যাওয়া তো দূরের কথা; শহরের মল, রেস্তোরা কোথাও যাওয়ার উপায় নেই। খুব গুরুত্বপূর্ণ কোনও কাজ ছাড়া বাড়ির চৌহদ্দি মাড়ানোরও উপায় নেই। করোনা আতঙ্কে জীবনের কোনও আমোদ আল্হাদই; যেন অবশিষ্ট নেই। কবে আবার আমরা স্বাভাবিক ছন্দে ফিরব; এটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন।

আদও কি আগের মতো মুক্ত বিহঙ্গের ন্যায়; এখান ওখান ঘুরে বেড়ানো যাবে। গড়িহাট বাজার হোক বা এসপ্ল্যানেড জনসমুদ্রে থৈ থৈ করতে থাকা; এই জায়গাগুলিতেও এখন শুধুই শূণ্যতা ছাড়া আর কিছুই নেই। নেই মানুষের ঢল,;নেই আগের মতো ব্যস্ততা। সেই সঙ্গে, শেষ হয়ে গেল বেড়াতে যাবার ব্যবসা। রুটি রুজি শেষ অনেকের।

আরও পড়ুনঃ ভ্যাকসিন কি হজমের ওষুধ, অর্ডার দিলেই আসবে, গুজবের নিউজে লাফাবেন না

ভ্রমণপিপাসু বাঙালি এখন সময়ের আর পরিস্থিতির কাছে; দাসত্ব শিকার করেছে বলা ভাল। করোনার কাছে হার মেনেছে তারা। তাই বাড়ির এক কোণে আজ ঠাঁই তাদের। ভ্রমণপ্রিয় মানুষ যখন ঘরবন্দি; তখন ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি কি করে চলবে। তাদের ব্যবসাতেও তাই এখন ভাটা পড়েছে। আদৌ কোনও আশা আছে? না নেই; প্রায় এক মাস ধরে অনেক রকমের চিন্তা ভাবনা গবেষণা করে দেখা গেছে; এই ইন্ডাস্ট্রি আপাতত শেষ। কোনওরকম আশা আর নেই।

এবার শেষ কেন সেই প্রসঙ্গে আসি; ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে আছে। ধরুন আপনার হোটেল লিজ নেওয়া; সেখানে সপ্তাহে ছটা লোক যাবে তার জন্য পাঁচ থেকে দশ’টা লোক পোষণ অসম্ভব। প্যাকেজ ট্যুর আর এ বছর হবে না। অসম্ভব। আগামীর অপেক্ষায় থাকতে হবে। যদিও গ্রাফ যা বলছে উপযুক্ত ভ্যাক্সিন ছাড়া; কোভিড ১৯কে বাগে আনা অসম্ভব; এমনকিভ্যাক্সিন এলেও। যত দিন যাবে বাড়ির লোক থেকে আত্মীয় স্বজন আরও বেশি করে ইনফেক্টটেড হবেন; সেক্ষেত্রে মানুষের মনে ভয় আরও বেশি করে বাসা বাঁধবে।

আরও পড়ুনঃ আপনি বাঁচলে বাপের নাম, অমিতাভের জন্য যজ্ঞ, নিজের ছেলে জ্বরে পড়তেই সব বন্ধ

ট্যুরিজম কিন্তু দাঁড়িয়ে; উচ্চ আর নিম্ন মধ্যবিত্ত-র ওপর এই দুই শ্রেণী হল সবচেয়ে সাবধানে চলা শ্রেণী। যা মননের ওপর প্রভাব ফেলেছে; এই ভাইরাস তাতে মধ্যবিত্তের এই দুই শ্রেণি আগামী এক বছর ঘুরতে যাওয়া তো ছাড়ুন; বাড়ির বাইরে দরকার ছাড়া বের হবেন না। আগামী ছ- সাত মাসে; অনেক প্রিয়জনকে হারাতে চলেছি। কিচ্ছু করার নেই; এমতাবস্থায় ভ্রমণ নিয়ে চিন্তা ভাবনা আরও কমে আসবে। হ্যাঁ বিচ্ছিন্ন কিছু ডে ট্রিপ বা উইকেন্ড ট্রিপ হতে পারে; কিন্তু ইন্ডাস্ট্রি কিভাবে সারভাইভ করবে শুধু ওই উইকেন্ড ট্রিপ এর উপর?

জানিনা; সঠিক দিশা দেখানো সরকারের পক্ষেও অসম্ভব। সত্যি বলতে কি হোটেল বা রুম স্যানিটাইজ করা হচ্ছে; এটা নিয়েও দেখছি লোকে চিন্তিত। সব সময় পজিটিভ থাকার চেষ্টা করেও; কিন্তু বিগত এক মাস বহু ট্যুরিস্টের সাথে কথা বলে; যা মনে হয়েছে এবং WHO সহ ICMR এর Observations গুলি পড়ে যা মনে হয়েছে; ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি আপাতত শেষ। এই ইন্ডাস্ট্রির সাথে যুক্ত বন্ধুরা ধীরে ধীরে অন্য চিন্তা করুন, অনেকে ই হয়ত শুরুও করেছেন। যারা করেন নি শুরু করুন। বেটার লেট দ্যান নেভার।

লিখলেন সঞ্জয় গোস্বামী সিকিমিজ (Sanjoy Goswami Sikkimese)

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন