গরু পাচার, সারদা, নারদা তদন্ত শেষ করতে, কলকাতা ইডি’র দায়িত্বে বিশেষ অধিকর্তা বিবেক ওয়াদেকরকে

940
গরু পাচার, সারদা, নারদা তদন্ত শেষ করতে, কলকাতা ইডি’র দায়িত্বে বিশেষ অধিকর্তা বিবেক ওয়াদেকরকে
গরু পাচার, সারদা, নারদা তদন্ত শেষ করতে, কলকাতা ইডি’র দায়িত্বে বিশেষ অধিকর্তা বিবেক ওয়াদেকরকে

মানব গুহ, কলকাতাঃ গান্ধী পরিবারের দুর্নীতির তদন্ত করে আসা; মধ্যাঞ্চলের বিশেষ অধিকর্তা বিবেক ওয়াদেকরকে; কলকাতা ইডির দায়িত্ব দিল কেন্দ্র। গরু পাচার, সারদা, নারদা তদন্ত শেষ করতেই; কলকাতা ইডি’র দায়িত্বে বিশেষ অধিকর্তা বিবেক ওয়াদেকরকে পাঠাল মোদী সরকার; এমনটাই বলছেন প্রশাসনিক কর্তারা। অন্যদিকে, মেয়াদ শেষের ১৫ দিন আগেই; এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেটের(ইডি)-র পূর্বাঞ্চলের বিশেষ অধিকর্তা কেরল ক্যাডারের আইপিএস অফিসার যোগেশ গুপ্তকে; বদলি করে দিল কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রক। তাঁকে দিল্লিতে ইডি’র সদর দফতরে, অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ পদে; অবিলম্বে যোগ দিতে বলা হয়েছে।

চিটফান্ডের তদন্ত ধীরগতিতে চলছিল বলে; ধারণা কেন্দ্রীয় সরকারের। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে গরু পাচার; ও ইডি নামে তোলাবাজির ঘটনা। এই কারণেই ইডি স্পেশাল ডিরেক্টর যোগেশ গুপ্তাকে; দায়িত্ব থেকে সরানো হল বলেই জানা যাচ্ছে। এই নিয়ে অনেক অভিযোগ এসেছিল; অন্য কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা CBI-র কাছে। রোজভ্যালি-সহ একাধিক তদন্ত নিয়ে, অনেক অভিযোগ নিয়ে; কেন্দ্রীয় দুই সংস্থার মধ্যে সমস্যা চলছে।

আরও পড়ুনঃ বাংলাদেশ থেকে ২০ লক্ষ হিন্দু তাড়ানোর হুমকি দিলেন, প্রাক্তণ সেনা মেজর দিলবর হুসেইন

সারদা, নারদা, রোজভ্যালি, সঙ্গে গরু পাচার; ঢিমেতালে চলছিল ইডির তদন্তের কাজ। ২১ বিধানসভা ভোটের আগে; এই তদন্তে গতি আনতেই এই রদবদল। যোগেশ গুপ্তার জায়গায়, নতুন ডিরেক্টর করা হল; ৯১-এর IRS ব্যাচের বিবেক ওয়াদেকরকে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে চাপে ফেলতেই; এই বদল বলে ধারণা বাংলার রাজনৈতিক মহলের।

মেট্রো ডেয়ারি শেয়ার হস্তান্তর মামলাতেও; কলকাতা ইডি’র ভূমিকা কেন্দ্রীয় সরকারের আতসকাচের নীচে রয়েছে। ইডি’র কাছে রাজ্যের বেশ কয়েক জন প্রভাবশালীর; গত কয়েক বছরে বিপুল পরিমাণ সম্পত্তি বৃদ্ধির অভিযোগও; ইডি তদন্ত করে দেখছিল। কিন্তু সেই তদন্ত এগোনোর আগেই; ইডি’র যাবতীয় নথিপত্র প্রভাবশালীদের হাতে পৌঁছে যায় বলে অভিযোগ। কলকাতার বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীকে; অর্থ তছরুপের অভিযোগে ডেকে; হেনস্থা করে হয়েছে এমন অভিযোগও প্রধানমন্ত্রীর দফতরে জমা পড়েছিল।

আরও পড়ুনঃ ৩৫ দিনে ১০ টি ঘাতক মিসাইলের সফল পরীক্ষা করল ভারতীয় বিজ্ঞানীরা, চোখ কপালে ইমরান-জিনপিংয়ের

রোজভ্যালি কাণ্ডে তদন্তের মূল দায়িত্ব ছিল; এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেটের উপর। এবিষয়ে সিবিআইও তদন্ত করছিল। সিবিআইয়ের তদন্তে রোজভ্যালি নিয়ে; তদন্তে গাফিলতি ধরা পড়ে। ইডির নামে ভয় দেখিয়ে তোলাবাজির অভিযোগে; এফআইআর দায়ের হয় থানায়। যেখানে চিটফান্ড অভিযুক্তদের পাশাপাশি; সাংবাদিকদের বিরুদ্ধেও অভিযোগ করা হয়েছে। এনফোর্সমেন্টের কলকাতা সার্কেলের স্পেশাল ডিরেক্টর সহ; অন্য অফিসারদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়। মনে করা হচ্ছে, তদন্তের কাজ যাতে ঠিকভাবে হয়; তার জন্যই যোগেশকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তবে, এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেটের তরফে অবশ্য; যোগেশ গুপ্তার বদলিকে রুটিন বদলি বলা হয়েছে। রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশন এবং ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল ট্রাস্টের বিরুদ্ধে, ওঠা আর্থিক অনিয়ম; খতিয়ে দেখার জন্য আন্তঃমন্ত্রক কমিটির নেতৃত্বে ছিলেন; আইআরএস অফিসার বিবেক ওয়াদেকর। কংগ্রেস আমলে ৩৬০০ কোটি টাকার, অগাস্টা ওয়েস্টল্যান্ড হেলিকপ্টার দুর্নীতির; তদন্তেও ছিলেন এই অফিসার। এছাড়াও অনেক হাই-প্রফাইল দুর্নীতি কাণ্ডের; তদন্ত করেছিলেন এই অফিসার। প্রধানমন্ত্রী মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের; খুব কাছের অফিসার বলেই মনে করা হয় বিবেক ওয়াদেকরকে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন