পুরুলিয়া, হেমতাবাদ, আরামবাগের পর গোঘাট, ফের বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার

1396
পুরুলিয়া, হেমতাবাদ, আরামবাগের পর গোঘাট, ফের বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার

পুরুলিয়া, হেমতাবাদ, আরামবাগের পর গোঘাট; ফের বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার। শনিবার বিকেলে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন বছর পঞ্চান্নর গণেশ রায়। আর বাড়ি ফেরেননি। রবিবার সকালে বাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে; গোঘাট স্টেশনের কাছে ওই বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেহ ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ। শাসকদল তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ আঙুল তুলেছে মৃতের পরিবার। ঘটনার প্রতিবাদে; এদিন সকালে আরামবাগ–মেদিনীপুর রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় বিজেপি।

পরিবারের লোকজন জানিয়েছেন; লোকসভা ভোটের আগে থেকে; তৃণমূলের লোকজনের কাছ থেকে হুমকি পেতেন গণেশ রায়। পরিকল্পিতভাবেই তাঁকে খুন করা হয়েছে। মৃতের ছেলের অভিযোগ; তৃণমূলের লোকজনই বাবাকে খুন করে ঝুলিয়ে দিয়েছে। রবিবার সাত সকালে; ওই ব্যক্তির ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়ায় গোটা এলাকায়।

এর আগে; স্বাধীনতা দিবসে পতাকা উত্তোলন নিয়ে বচসার জেরে; হুগলির আরামবাগের নতিবপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় খুন হয়ে যান বিজেপি পঞ্চায়েত সদস্য। গত পঞ্চায়েত ভোটের আগে; পুরুলিয়ায় বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। দুলাল কুমার ও ত্রিলোচন মাহাতো নামে দুই যুব কর্মীকে একই কায়দায় খুন করে দেহ গাছে ঝুলিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছিল। অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ দাবি করেন; তৃণমূলের হিংসার রাজনীতির জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে। এর বিরুদ্ধে; রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভ দেখাবে বিজেপি। তবে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব এ অভিযোগ অস্বীকার করে জানিয়েতেছ; বিজেপি লাশের রাজনীতি করছে। তাদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এই ঘটনা। তৃণমূল বিধায়ক মানস মজুমদার জানান; গণেশ রায় একজন দিনমজুর বলে জানি। তাঁর মৃত্যুকে ঘিরে রাজনীতি করছে বিজেপি।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন