একটা পরিবারের জন্য বিপদের মুখে গোটা বাংলা

3724
একটা পরিবারের জন্য বিপদের মুখে গোটা বাংলা/The News বাংলা

নদিয়ার তেহট্ট এর একটা পরিবারের জন্য; বিপদের মুখে গোটা বাংলা। রাজ্যে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত; ওই একই পরিবারের ৫ জন। আক্রান্ত ৯ মাস ও ৬ বছরের দুই শিশুও। রাজ্যে আক্রান্ত বেড়ে ১৫। হোম আইসোলেশনে ২৬৮৯৯ জন। নদিয়ার তেহট্টের একই পরিবারের পাঁচজনের শরীরে; কীভাবে সংক্রমিত হল মারণ ভাইরাস? রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর; এর পিছনেও রয়েছে লন্ডন যোগ। লন্ডন ফেরৎ ওই পরিবারের এক ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেই; ওই পাঁচজন করোনায় আক্রান্ত। সন্দেহভাজন আরও তেরোজন। এই ঘটনায় ভীত তেহট্টবাসী সহ গোটা রাজ্য।

শুক্রবার রাজ্যে কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা; ১০ থেকে বেড়ে হয়েছে ১৫। আক্রান্তদের তালিকায় রয়েছে; ৯মাসের শিশু সহ ৪ মহিলা। আক্রান্তরা প্রত্যেকেই দিল্লির বাসিন্দা। জানা গিয়েছে, অভিষেক মণ্ডল নামে এক যুবক; ব্রিটেন থেকে গত ১৬ তারিখ দিল্লিতে ফেরে। সেই দিনই নদিয়ার তেহট্টের বার্নিয়ার বাসিন্দা; অভিষেকের দাদুর মৃত্যু হয়।

১৭ মার্চ দিল্লি থেকে বার্নিয়া পৌঁছোন; অভিষেকের বাবা ও মা। তার দুদিন পরে পরিবারের আরও পাঁচজন; দিল্লি থেকে বার্নিয়ায় আসেন। এরপরই গত ২০ মার্চ জ্বরে কাবু হয়ে; দিল্লির এক হাসপাতালে ভর্তি হয় অভিষেক। পরীক্ষায় ধরা পড়ে তার কোভিড-১৯ পজেটিভ।

দিল্লি থেকে নদিয়ার বার্নিয়ায় এসেছেন; এই খবর জানতে পেরেই গত ২৫ তারিখ নদিয়া জেলা প্রশাসন; দিল্লি থেকে আসা ওই পরিবারের ৭ সদস্য সহ মোট তেরো জনকে; তেহট্ট কর্মতীর্থে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠায়। শুক্রবার ওই তেরোজনের মধ্যে ৫ জনের; করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। তবে, করোনায় আক্রান্ত ব্রিটেন ফেরৎ অভিষেকের; বাবা ও মা-য়ের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

দিল্লি থেকে তেহট্টে আসা ওই পাঁচজন; এর মাঝে কাদের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাদের সন্ধান চালাচ্ছে প্রশাসন। এবং যেটা প্রায় অসম্ভব। রাজধানী এক্সপ্রেসে শিয়ালদায় এসেছিল; নদিয়ার তেহট্টের করোনা আক্রান্ত পরিবার। সেখান থেকে লালগোলা প্যাসেঞ্জারে; জেনারেল কামরায় বাড়ি ফেরেন তাঁরা। এছাড়াও তেহট্টে বাজারে বা দোকানেও গিয়েছিলেন আক্রান্তরা।

আর এখানেই প্রশ্ন; কতজনের সংস্পর্শে এসেছেন তাঁরা? এটাই এখন ভাবাচ্ছে প্রশাসনকে। রাজধানী এক্সপ্রেসের যাত্রী তালিকা চাওয়া হলেও; লালগোলা প্যাসেঞ্জারের সাধারণ কামরায় কারা ছিলেন; সেটা জানা যাবে কী করে? গোটা বিষয়টা নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের ওপর; ক্ষুব্ধ রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর। আর এই একটি পরিবার; বিপদের মুখে ফেলে দিয়েছে গোটা বাংলাকে।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন