মাতৃভাষার জন্য বিশ্বে প্রথম প্রাণ দিয়েছিলেন এক বাঙালি নারী

2042
মাতৃভাষার জন্য বিশ্বে প্রথম প্রাণ দিয়েছিলেন এক বাঙালি নারী
মাতৃভাষার জন্য বিশ্বে প্রথম প্রাণ দিয়েছিলেন এক বাঙালি নারী

ভাষা আন্দোলন ভারতীয় ইতিহাসের; এক অন্যতম অধ্যায়। ভাষা এমন এক মাধ্যম; যা মানুষের সামাজিক; রাজনৈতিক; অর্থনৈতিক ও মানবাধিকারের মাপকাঠি হিসেবে বিবেচিত। এই মাতৃভাষার দাবিতে; বিশ্বের একমাত্র নারী যিনি প্রাণ দিয়েছিলেন; তিনিও বাঙালি। তিনি হলেন শহিদ কমলা ভট্টাচার্য। কমলা ভট্টাচার্যের জন্ম ১৯৪৫ সালে; অসমের সিলেটে (শ্রীহট্টে)। রামরমণ ভট্টাচার্য ও সুপ্রবাসিনী দেবীর ঘরে জন্মান; ভবিষ্যতের ভাষা বিপ্লবী কমলা। পিতৃবিযোগের পর আর্থিক অনটনের মধ্যে দিন কাটান; কমলা ও তাঁর পরিবার। এরপর ম্যাট্রিক পরীক্ষা পাশ করে; ভাষা আন্দোলনে যোগদান করেন।

১৯৬১ সালের ১৮ই এপ্রিল; শিলচর রেল স্টেশনে বরাক উপত্যকায়; বাংলা ভাষা সরকারী ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্যে; হরতাল কর্মসূচি শুরু করেন আন্দোলনকারীরা। ১৯শে মে সকালে তিনি; আন্দোলনে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নেন। কংগ্রেস সরকারের সমস্ত বলপ্রয়োগ বিফলে গেছিল; রেল হরতাল সফল হতে চলছিল। মাতৃভাষা জিন্দাবাদ ধ্বনিতে রেলস্টেশন মুখর। বিকেল ৪টায়; হরতাল শেষ করার কথা ছিল।

আরও পড়ুনঃ বাঙালি বিজ্ঞানী, ইংরেজ আমলে পাননি নোবেল, স্বাধীন ভারতে সম্মান জোটেনি বাংলায়

কিন্তু পরিস্থিতি বদলে যায় দ্রুত। দুপুর প্রায় আড়াইটের সময়, নজন আন্দোলনকারীকে; কাটিগোরা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। শিলচর স্টেশনে আন্দোলনকারীরা; তাদেরকে গ্রেফতার করে নিয়ে যেতে দেখে; তীব্র প্রতিবাদ করেন। ভয় পেয়ে ট্রাকচালক সহ পুলিশরা; বন্দীদের ফেলে পালিয়ে যায়। এরপর কিছু অজানা লোক; ট্রাকটি জ্বালিয়ে দেয়। যদিও দমকলবাহিনী এসে তৎপরতার সঙ্গে; আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তারপরে স্টেশনের সুরক্ষায় থাকা প্যারামিলিটারী বাহিনী; আন্দোলনকারীদেরকে বন্দুক ও লাঠি দিয়ে মারতে শুরু করে।

আরও পড়ুনঃ লকডাউন উঠলেও পকেটে টান, বেড়াতে গিয়ে খুব কম খরচে থাকুন ভারত সেবাশ্রম সংঘে

ঝাঁকে ঝাঁকে গুলি ছুটে আসে; রাইফেল থেকে। মুহূর্তের মধ্যে ১৭ রাউণ্ড গুলি চলে; আন্দোলনকারীদের লক্ষ্য করে। রক্তস্নাত হয় শিলচর। রক্তের আর্তনাদ চিরে; সত্যাগ্রহীদের মুখ দিয়ে বেরিয়ে এলো ‘মাতৃভাষা জিন্দাবাদ’। সেদিন ১২জন আন্দোলনকারীর দেহে গুলি লেগেছিল। সেদিনের শহিদদের মধ্যে ১৬ বছরের কিশোরী; কমলা ভট্টাচার্যও ছিলেন। বিশ্বের একমাত্র নারী যিনি; মাতৃভাষার স্বীকৃতির দাবিতে; শহিদ হয়েছিলেন। তাঁর ডান চোখের পাশ দিয়ে; একটা গুলি মাথায় ঢুকে যায়। সেই মুহূর্তেই তিনি; মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। শেষ হয় একটা অধ্যায়।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন