ইয়াস ত্রাণে প্রশাসন, দীঘা সাজাতে আলাপন, দলের নেতায় ভরসা কমছে মমতার

477
ইয়াস ত্রাণে প্রশাসন, দীঘা সাজাতে আলাপন, দলের নেতায় ভরসা কমছে মমতার
ইয়াস ত্রাণে প্রশাসন, দীঘা সাজাতে আলাপন, দলের নেতায় ভরসা কমছে মমতার

ইয়াস ত্রাণে প্রশাসন; দীঘা সাজাতে আলাপন। দলের নেতায় কি ভরসা কমছে মমতার? ইয়াসের পর বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নিয়েছেন; মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি ঘূর্ণিঝড় আসার আগেই প্রশাসনের কাজ; প্রশংসা আদায় করেছে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের। ঘূর্ণিঝড়ের পর, মমতার সব সিদ্ধান্তই; প্রশাসন-কেন্দ্রিক। অন্যবারের মত, নিজের দলের নেতাদের উপর; আর ভরসা রাখেননি তিনি। বিশেষ করে আমফান ত্রাণ নিয়ে, এত অভিযোগ এসেছিল; নেতাদের ‘পুকুর চুরি’ এত সামনে এসেছিল যে; ভোটের আগে অস্বস্তির মধ্যে ছিলেন তৃণমূল নেতারাও। সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে; এবার সবটাই নিজের হাতে রাখছেন মুখ্যমন্ত্রী।

নবান্ন থেকে বারবার সাবধান করেছেন; এবার কোন দুর্নীতি বরদাস্ত নয়। প্রশাসনিক বৈঠকেও বারবার সচেতন করেছেন; “এবার ত্রাণ নিয়ে; কোন অভিযোগ যেন না আসে”। সেই কারণেই এবার ত্রাণ বিলির দায়িত্বে; রাজ্য ও জেলা প্রশাসন। আমফানের ত্রাণবিলিতে যে দুর্নীতি হয়েছিল; স্বীকার করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাই ইয়াস ঘূর্ণিঝড়ের পরে, ত্রাণ বিলির কাজে; প্রথমেই দুর্নীতিকে দমন করতে সচেষ্ট মমতা। যার জেরে, পুরো ত্রাণ বণ্টন ব্যবস্থায়; দল বা নেতাদের যুক্ত করেননি মুখ্যমন্ত্রী। বরং পুরো দায়িত্ব তুলে দিয়েছেন; প্রশাসনের হাতেই।

আরও পড়ুনঃ ইয়াস ক্ষতিপূরণ, মমতা চাইলেন ২০ হাজার কোটি, মোদী দিলেন ২৫০ কোটি

ইয়াস ঘূর্ণিঝড়ের পরেই, মুখ্যমন্ত্রী মমতা জানান; ত্রাণের কাজ করবে প্রশাসন। দল তাতে জড়িত থাকবে না। দুয়ারে ত্রাণ চালু করার কথা; ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। আগামী ৩ জুন থেকে; দুয়ারে ত্রাণ প্রকল্প শুরু হবে। চলবে ১৮ জুন পর্যন্ত। প্রতিটি গ্রামে গ্রামে; ক্যাম্প করবে সরকার। মানুষ সেখানে; ক্ষতিপূরণের আবেদন করবেন। আবেদন খতিয়ে দেখা হবে; ১৯-৩০ জুন পর্যন্ত। ১ জুলাই থেকে, ক্ষতিগ্রস্থ-দের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে; সরাসরি টাকা ঢুকবে।

একইরকম-ভাবে দীঘা সাজাতে; এবার মমতার ভরসা আলাপন। দলের কোন নেতা নয়; আপাতত দিঘা উন্নয়ন পর্ষদের দায়িত্ব দিলেন; মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কেই। এদিন ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা দেখে, মমতা জানান; “দ্রুত পরিস্থিতি মোকাবিলায়; দীঘা উন্নয়ন পর্ষদের দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে; আলাপন-কেই। দীঘা উন্নয়ন পর্ষদের; চেয়ারম্যানের পদ ফাঁকা। দীঘার সৌন্দর্য দ্রুত ফেরাতে; আলাপন-কেই প্রয়োজন, বললেন মুখ্যমন্ত্রী। দলের নেতা নয়; তৃতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী পদে বসে; নিজের প্রশাসন-কেই ভরসা করছেন মমতা।

Please follow and like us:
error

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন