মমতার পর সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রমাণ চাইলেন মেহেবুবা

287
সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রমান চেয়ে প্রশ্ন মেহবুবা মুফতির/The News বাংলা
সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রমান চেয়ে প্রশ্ন মেহবুবা মুফতির/The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

পুলওয়ামায় সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পর থেকে সেনার তরফে অনেক সন্ত্রাসবাদীর মৃত্যুর খবর দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অনেকের কাছেই মৃতের সংখ্যা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। যদিও ভারতের বিমান হানায় বা দ্বিতীয় সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে খতম জইশ জঙ্গি ডেরা ও জইশ জঙ্গিরা, স্বীকার করে নিয়েছে জঙ্গিরাই। একই সাথে কিছু আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে মৃতের পরিসংখ্যান এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে। আর তাতেই সন্দেহ প্রকাশ করছেন বিভিন্ন বিরোধী দলের নেতানেত্রীরা।

জইশ ই মহম্মদ সৃষ্টিকর্তা মাসুদ আজহারের ভাইও এই অভিযান এর কথা মেনে নিয়েছে। মাসুদ আজাহার বলেছেন খতম ভাই ইব্রহিম, শ্যালক ইউসুফ সহ শীর্ষ জইশ নেতারা। হামলার কথা পাকিস্থানে এক জনসভায় স্বীকার করে নিয়েছে মহম্মদ আম্মর। যে নিজেও টার্গেটে ছিল কিন্তু ঐসময় না থাকায় বরাত জোরে বেঁচে যায়। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতার পর এবার সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রমাণ চাইলেন মেহেবুবা মুফতি।

আরও পড়ুনঃ সার্জিক্যাল স্ট্রাইকে মাসুদ আজহারকেও কি উড়িয়ে দিয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনা

ঐ সময় পাকিস্তানে থাকা ইতালির সাংবাদিক ফ্রান্সিকা মারিনো পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, “ভারতের বায়ুসেনা জইশ ই মহম্মদের একটি বড় জঙ্গি ট্রেনিং ক্যাম্প গুঁড়িয়ে দিয়েছে”। ইতালির সাংবাদিক ফ্রান্সিকা মারিনো জানিয়েছেন, তিনি ওইদিন বালাকোটের ওই অঞ্চলে গিয়েছিলেন। যে ক্যাম্পে বোমা ফেলেছিল ভারত সেখান থেকে অনেক জঙ্গির লাশ বের করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ ভারতকে হেয় করতে পাকিস্তানের মিথ্যা দাবিতে বেঘোরে প্রাণ গেল পাক পাইলটের

কিন্তু বিরোধী দলগুলো যেমন বিজেপির বিরুদ্ধে মৃতদের সংখ্যার ভুল তথ্য দিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ এনেছেন। তেমনি বিরোধী দলগুলিও সঠিক প্রমানের দাবি নিয়ে রাজনীতির ময়দানে নেমেছে।

এই ব্যাপারে সবার আগে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রমাণ ও মৃতদের পরিসংখ্যান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। এমনকী পুলওয়ালার সন্ত্রাসবাদী হামলার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী মোদী সব কিছু জানতেন বলে মন্তব্য করেন। পাকিস্তানি বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওই সকল মন্তব্যকে হাতিয়ার করে।

আরও পড়ুনঃ ভারতকে সাইকোলজিক্যাল ব্ল্যাকমেল, মুখ ও মুখোশের আড়ালে পাকিস্তান

এর দুদিন পরেই প্রমাণ দেখানোর দাবি তোলেন কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিংহ। এবার একই পথে হাঁটলেন জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা পিডিপি সুপ্রিমো মেহবুবা মুফতি।

এদিন মেহবুবা মুফতি বলেন, দেশের নাগরিক হিসেবে ভারতের সকলের বালাকোট অপারেশনের তথ্য জানার অধিকার রয়েছে। তিনিও বিজেপির বিরুদ্ধে জঙ্গিদের মৃতদেহের সংখ্যা নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ তোলেন। তিনি আরও বলেন, বালাকোট নিয়ে প্রশ্ন তোলা হলেই সরকার দেশদ্রোহী আখ্যা দিচ্ছে। নোটবন্দী, বেকারত্ব, কৃষক অসন্তোষ থেকে নজর ঘোরাতেই বিজেপি চেষ্টা চালাচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

আরও পড়ুনঃ জওয়ানদের হত্যার ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র পাক আইএসআইয়ের

বিশেষজ্ঞদের মতে, পাকিস্তান স্বাভাবিকভাবেই সন্ত্রাসবাদীদের আশ্রয় দেবার দায় এড়াতে মৃতের সংখ্যা প্রকাশ করবে না। তাতে পাকিস্তানের মুখ পুড়বে। যদিও বায়ুসেনার তরফে আগেই জানানো হয়েছিলো যে, সঠিক সময়ে সরকার সমস্ত প্রমান প্রকাশ্যে আনবে। তাদের কাছে সমস্ত প্রামাণ্য রেকর্ড রয়েছে।

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন