এসএসসি চাকরির আন্দোলন বন্ধের নির্দেশ, জোর করে তুলে দেবার হুমকি পুলিশের

395
এসএসসি চাকরির আন্দোলন বন্ধের নির্দেশ, জোর করে তুলে দেবার হুমকি পুলিশের/The News বাংলা
এসএসসি চাকরির আন্দোলন বন্ধের নির্দেশ, জোর করে তুলে দেবার হুমকি পুলিশের/The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

এবার কলকাতা পুলিশের হুমকির মুখে এসএসসি-র অনশনরত আন্দোলনকারীরা। কলকাতা প্রেস ক্লাবের সামনে স্কুল সার্ভিস কমিশনের বিরুদ্ধে চাকরিপ্রার্থীদের অনশন আন্দোলনকারীদের হুমকি দিয়েছে পুলিশ, এমনটাই অভিযোগ আন্দোলনকারীদের। অনশনরতদের অভিযোগ, শনিবার সকাল থেকেই কলকাতা পুলিশের পদস্থ কর্তারা অনশনকারীদের হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন, আন্দোলন তুলে না নিলে জোর করে তুলে দেওয়া হবে। তবে কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে হুমকির কথা অস্বীকার করা হয়েছে।

স্কুল সার্ভিস নিয়ে আরও পড়ুনঃ বাংলা এখন লাশের রাজনীতিতে অভ্যস্থ, শুধু একটা লাশ চাই আমাদের
স্কুল সার্ভিস নিয়ে আরও পড়ুনঃ বাংলাকে চরম লজ্জায় ফেলে শিক্ষক শিক্ষিকাদের অনশন আন্দোলন ২১ দিনে

টানা ৩ সপ্তাহ কেটে গেছে। তবুও টনক নড়ে নি কারোর। ২৪ দিন রোদে পুড়ে, জলে ভিজেও আন্দোলন থামায় নি ওরা। কিন্তু ভোটের বাজারে রাজ্য সরকারের তা দেখার সময় কোথায়? বিরোধীরাও ব্যস্ত ভোট নিয়ে। আর রাজ্যের শাসক দলের বিরুদ্ধে ভোটের বাজারে লিখতে এগিয়ে আসছে না বাংলার কোন বড় সংবাদমাধ্যমও। ভোটের আগে পাতার পর পাতা জুড়ে অনেক সরকারি বিজ্ঞাপন চলেছে যে!

এসএসসি চাকরির আন্দোলন বন্ধের নির্দেশ, জোর করে তুলে দেবার হুমকি পুলিশের/The News বাংলা
এসএসসি চাকরির আন্দোলন বন্ধের নির্দেশ, জোর করে তুলে দেবার হুমকি পুলিশের/The News বাংলা

কিন্তু এবার এই আন্দোলন রাজ্য সরকারের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে উঠছে বলেই মনে করা হচ্ছে। অরাজনৈতিক আন্দোলন হলেও ভোটের ঠিক আগে এটাকেই ইস্যু করতে তৈরি বিরোধী দলগুলি। বড় মিডিয়া হাউস এই নিয়ে খবর না করলেও, সোশ্যাল মিডিয়া ছেয়ে গেছে স্কুল সার্ভিস কমিশনের বিরুদ্ধে চাকরিপ্রার্থীদের অনশন আন্দোলন। তাই এবার পুলিশ লাগিয়ে ভয় দেখিয়ে জোর করে আন্দোলন তুলে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে বলেই অভিযোগ অনশন আন্দোলনকারীদের।

আরও পড়ুনঃ অনুব্রত মন্ডলের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের

কলকাতা প্রেস ক্লাবের সামনে স্কুল সার্ভিস কমিশনের বিরুদ্ধে চাকরিপ্রার্থীদের অনশন আন্দোলন শনিবার পা দিল ২৪ দিনে। দিন যত গড়াচ্ছে ততই জটিল আকার নিচ্ছে এসএসসি চাকরিপ্রার্থীদের অনশন আন্দোলন। আজ ২৪ দিনে পড়ল তবু অনশন জট কাটল না। এই পরিস্থিতিতে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চায় অনশনকারীরা। কিন্তু ২৪ দিনেও সাড়া মেলেনি ধর্মতলায় টানা ২৫ দিন অনশন আন্দোলন করা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

আরও পড়ুনঃ বাম কংগ্রেস বিজেপির আপত্তি নেই, কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে কেন মাথাব্যথা শুধু তৃণমূলের

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কলকাতার রাজপথে অনশনে বসেছেন যুবক-যুবতীরা। উল্লেখ, শুরুতে প্রায় ৪৫০ জনকে নিয়ে অনশন শুরু করেছিলেন এসএসসি-র ওই চাকরি প্রার্থীরা। অনশন চলাকালীন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন অনেক প্রার্থী। গর্ভস্থ সন্তান নষ্ট হওয়ায় গর্ভপাত করতে হয়েছে একজন অনশনকারীর। দুই অন্তঃসত্ত্বাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। হসপিটালে ভর্তি করতে হয়েছে ৫৮ জনকে।

অনশনরত মোট ১০০ জনকে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। বীরভূমের একজন ডেঙ্গু আক্রান্ত, মুর্শিদাবাদ থেকে আসা একজন ভুগছে রক্ত আমাশায়। এখনও প্রতিদিন গড়ে ২০০ জন করে প্রেস ক্লাবের সামনে অনশন অবস্থানে বসে। তাঁদের বক্তব্য, “এসব সত্ত্বেও আমাদের লড়াই থামবে না”।

আরও পড়ুনঃ বিরোধী মহিলা প্রার্থীদের ‘মাল’ সম্বোধন করে কুরুচিপূর্ণ আক্রমণ ফিরহাদের

শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলে সন্তুষ্ট নন অনশনকারীরা। চাকরির বিষয়ে মন্ত্রী এখনও কোনও আশ্বাস দেন নি। রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর সঙ্গে দাবি নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে। চাকরি নিয়ে কোনও আশ্বাস না পেলে তাঁরা কোনোমতেই অনশন তুলবেন না বলে সিদ্ধান্তে অনড় অনশনকারীরা।

এই পরিস্থিতিতে টানা ২৪ দিন কলকাতার রাজপথে বসে বাংলার ভবিষ্যতের শিক্ষক শিক্ষিকারা। আর এই আন্দোলন ভাঙতেই এবার পুলিশ পাঠিয়ে ভয় দেখাচ্ছে মমতার সরকার, অভিযোগ এমনটাই। তবে কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে একথা অস্বীকার করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ বাবুলকে হারাতে ১ কোটি টাকার কাজের টোপ, বিতর্কিত ঘোষণা মেয়রের

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন