ভোট বাজারে ফের খবরের শীর্ষে অনিল আম্বানি ও ফ্রান্সের রাফাল চুক্তি

205
ভোট বাজারে ফের খবরের শীর্ষে মোদী, অনিল আম্বানি ও ফ্রান্সের রাফাল চুক্তি/The News বাংলা
ভোট বাজারে ফের খবরের শীর্ষে মোদী, অনিল আম্বানি ও ফ্রান্সের রাফাল চুক্তি/The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

ভোটের বাজারে রাফাল নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে আক্রমণ করার আরও একটি অস্ত্র পেয়ে গেল কংগ্রেস। সৌজন্যে খ্যাতনামা ফরাসি সংবাদপত্র ‘ল্য মঁদ’-এ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন। যাতে লেখা হয়েছে, অনিল আম্বানির একটি সংস্থার ১৬ কোটি ২৬ লক্ষ মার্কিন ডলারের কর মকুব করেছে ফ্রান্স সরকার। এই খবর সামনে আসার পরই নতুন করে রাফাল-যুদ্ধ শুরু হয়েছে শাসক-বিরোধী শিবিরের মধ্যে।

ফের বিতর্কের কেন্দ্রে রাফাল চুক্তি। শনিবার ফরাসি পত্রিকা ‘ল্য মঁদ’ এ প্রকাশিত প্রতিবেদন বলছে রাফাল চুক্তির পরেই অনিল আম্বানিকে ১৪৩.৭ মিলিয়ন ইউরো কর ছাড় দেয় ফ্রান্স সরকার। অনিল আম্বানির ফ্রান্স ভিত্তিক টেলিকম সংস্থা ‘রিলায়েন্স আটলান্টিক ফ্ল্যাগ ফ্রান্স’কে এই বিপুল অঙ্কের কর মকুব করা হয়েছিল রাফাল চুক্তি ঘোষণার ৬ মাসের মধ্যেই।

ভোট বাজারে ফের খবরের শীর্ষে মোদী, অনিল আম্বানি ও ফ্রান্সের রাফাল চুক্তি/The News বাংলা
ভোট বাজারে ফের খবরের শীর্ষে মোদী, অনিল আম্বানি ও ফ্রান্সের রাফাল চুক্তি/The News বাংলা

ফরাসি আয়কর দপ্তরের কাছে ১৫.‌১০ কোটি ইউরো কর বাকি ছিল অনিল আম্বানির ফরাসি টেলিকম সংস্থা ‘‌রিলায়েন্স ফ্ল্যাগ অ্যাটলান্টিক ফ্রান্স’‌–এর। ওই পাহাড়প্রমাণ বকেয়া আয়কর দিতে নারাজ আম্বানির সঙ্গে দর–কষাকষি চলছিল ফরাসি কর্তৃপক্ষের। ২০১৫–র অক্টোবরে হঠাৎই সমঝোতা হয়ে গেল!

আরও পড়ুনঃ মোদীকে ভোট দিতে চাকুরী ছেড়ে ভারতে এলেন এই প্রবাসী ভারতীয়

‘মাত্র ৭৩ লক্ষ ইউরো পাওনা মিটিয়ে‌ ১৪.‌৩৭ কোটি ইউরো কর ছাড় পেয়ে গেল রিলায়েন্স ফ্রান্স। তার মাসকয়েক আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ফ্রান্স সফরে গিয়ে, প্যারিসে দাঁড়িয়ে ঘোষণা করেছেন ৩৬টি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার কথা। যে চুক্তিতে ফরাসি বিমান নির্মাতা সংস্থা ‌‘‌দাসো অ্যাভিয়েশন’‌–এর ভারতীয় সহযোগী সংস্থা হিসেবে রাখা হয়েছে অনিল আম্বানির সদ্যোজাত ‘‌রিলায়েন্স ডিফেন্স’‌ সংস্থাকে, সেটিও খোদ ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর তদ্বিরেই। অভিযোগ ছিল এমনটাই।

আরও পড়ুনঃ বিজেপিকে হারাতে সিপিএম ও কংগ্রেসের প্রতি ভোট ভাগ না করার অনুরোধ মমতার

ভারতে লোকসভা নির্বাচনের দ্বিতীয় দফা শুরু হওয়ার মুখে এই বোমাটি ফেলেছে ফরাসি জাতীয় দৈনিক ‘‌ল্য মঁদে’‌। রাফাল চুক্তির আলোচনা এবং আম্বানির সংস্থার করমুক্তির মধ্যে কী নিপুণ সংযোগ, কার্যত দাগিয়ে দিয়েছে। তার পরই ভারত জুড়ে হইচই। বিজেপি–র স্লোগানই সরকারকে ফিরিয়ে দিয়েছে কংগ্রেস— মোদি হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়!‌

আরও পড়ুনঃ মাস্টার্স না করেই এম ফিল কীভাবে, রাহুলকে প্রশ্ন জেটলির

১৪৩৭ লক্ষ ইউরো, ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১১০০ কোটি টাকা কোনও সংস্থাকে কর ছাড় দেওয়া যেহেতু সচরাচর ঘটে না, বিষয়টি ফরাসি সংবাদমাধ্যমের নজরে এসেছে। সামনে এসেছে ঘটনা পরম্পরা। ২০০৭ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে রিলায়েন্স ফ্ল্যাগ অ্যাটলান্টিক ফ্রান্স ৬ কোটি ইউরো আয়কর বাকি রেখেছিল। ফরাসি কর্তৃপক্ষের তদন্তে এটা ধরা পড়ার পর নোটিস পাঠানো হয় রিলায়েন্স ফ্রান্সকে। কিন্তু ৬ কোটির বদলে ৭৬ লক্ষ ইউরো দিয়ে রিলায়েন্স বিষয়টি মিটিয়ে নিতে চায়। রাজি হননি ফরাসি কর্তৃপক্ষ এবং নতুন করে তদন্ত শুরু হয়।

আরও পড়ুনঃ শিলিগুড়ির জনসভায় মাছি মারার অবস্থা, চিন্তায় তৃণমূল নেতৃত্ব

তখন ধরা পড়ে, ২০১০ থেকে ২০১২–র মধ্যে আরও ৯.‌১ কোটি ইউরো কর ফাঁকি দিয়েছে আম্বানির সংস্থা। ২০১৫ এপ্রিলে নরেন্দ্র মোদী যখন প্যারিসে ৩৬টি রাফাল কেনার কথা ঘোষণা করছেন, ততক্ষণে ফ্রান্সে আম্বানির বকেয়া করের অঙ্ক দাঁড়িয়েছে ১৫.‌১ কোটি ইউরো। কিন্তু আম্বানির সংস্থা রাফাল চুক্তির অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পরের ছ’মাসে দ্রুত পরিস্থিতি পাল্টায়।

আরও পড়ুনঃ বিমানের সঙ্গে হেলিকপ্টারের মুখোমুখি সংঘর্ষে মৃতের সংখ্যা বহু

যে অঙ্কের কর প্রথমে নিতে অস্বীকার করেছিল ফরাসি আয়কর দপ্তর, তার থেকেও ৩ লক্ষ ইউরো কমে, মাত্র ৭৩ লক্ষ ইউরোতেই সমঝোতা হয়ে যায় ১৫.‌১ কোটি ইউরোর বকেয়া আয়করের মামলা। এপ্রিল থেকে অক্টোবরের মধ্যে আম্বানির ঘাড় থেকে সরে যায় ১৪.‌৩৭ কোটি ইউরোর করের বোঝা।

রিলায়েন্স কমিউনিকেশনস এর তরফে রাফাল চুক্তির সুবাদে করছাড়, বা কোনও বাড়তি সুবিধা পাওয়ার কথা অস্বীকার করে দাবি করা হয়েছে, ওই ১৫.‌১ কোটি ইউরো আয়কর দেওয়ার দাবি অযৌক্তিক এবং অবৈধ ছিল। বকেয়া আয়কর নিয়ে বিবাদের নিষ্পত্তি হয়েছে চলতি ফরাসি আইন মেনেই, ফ্রান্সে ব্যবসা করা অন্যান্য সমস্ত সংস্থা যে সুযোগ পেয়ে থাকে।

আরও পড়ুনঃ ভোটবাজারে কলকাতায় কার্নিভ্যাল, কুমোরটুলি ফেস্টিভ্যালে মজেছে পুজোর দুনিয়া

আর যে সময়সীমার মধ্যে বকেয়া আয়করের হিসেব করা হয়েছে, সেই ২০০৮ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে রিলায়েন্স ফ্রান্সের ২৭ লক্ষ ইউরো লোকসান হয়েছিল। তাও ১১০০ কোটি টাকা আয়কর দাবি করেছিলেন ফরাসি কর্তৃপক্ষ, যা ৫৬ কোটি টাকা দিয়ে মেটানো হয়েছে।

সংবাদপত্রে প্রকাশিত রিপোর্ট বলছে, ফ্রান্স সরকার ২০০৭-২০১২ সাল, এই সময়ের মধ্যে অনিল আম্বানির সংস্থার কাছে ১৫১ মিলিয়ন ইউরোর কর দাবি করেছিল। দু’পক্ষের বোঝাপড়ার পর ৭.৬ মিলিয়ন ইউরোয় এসে ঠেকে। ২০১৫ সালের ২২ অক্টোবর ৭.৩ মিলিয়ন ইউরো কর গ্রহণ করেছে ফরাসি কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুনঃ তৃণমূল বিধায়ককে তুলে নিয়ে যাবার হুমকি বিজেপি প্রার্থী লকেট চ্যাটার্জীর

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ফ্রান্সে গিয়েছিলেন ২০১৫-এর এপ্রিলে। সেই সময় তিনি ঘোষণা করেছিলেন ফ্রান্সের ডসাল্ট এভিয়েশন সংস্থা থেকে ৩৬ টি রাফালে যুদ্ধ বিমান কিনবে ভারত। দিল্লিতে রাফাল চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার দিন কয়েক আগেই আম্বানির মালিকানাধীন আরেকটি সংস্থা রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট একটি ফরাসি চলচ্চিত্রে বেশ কিছু টাকা বিনিয়োগ করে। ছবি প্রযোজনার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন ততকালীন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কোই ওঁলাদ। তিনি যদিও রাফাল চুক্তির সঙ্গে কোনরকম যোগ অস্বীকার করেছেন।

কংগ্রেসের দাবি, ফ্রান্সে ‘রিলায়েন্স অ্যাটলান্টিক ফ্ল্যাগ ফ্রাঁস’ বলে একটা সংস্থা আছে অনিলের। ২০০৭ থেকে ২০১০ পর্যন্ত এই কোম্পানির ওপর ৬০ মিলিয়ন ইউরো কর ধার্য করেছিল ফরাসি প্রশাসন৷ কিন্তু, কোম্পানি জানায়, তারা মাত্র ৭ মিলিয়ন ইউরো কর দিতে পারবে৷ প্রস্তাব খারিজ করে দেয় ফ্রান্স। ২০১০-এর পর বকেয়া করের অঙ্ক আরও বাড়ে। এই নিয়েই আপাতত লড়াই শুরু বিজেপি বনাম বিরোধীদের।

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন