নির্বাচন কমিশনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মিমির বিজ্ঞাপনে মুখ ঢাকল যাদবপুর

280
নির্বাচন কমিশনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মিমির বিজ্ঞাপনে মুখ ঢাকল যাদবপুর/The News বাংলা
নির্বাচন কমিশনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মিমির বিজ্ঞাপনে মুখ ঢাকল যাদবপুর/The News বাংলা

এবারের ভোটে কোন প্রার্থীর কোন পোস্টার ব্যানার লাগান যাবে না। কোন রকমেই দৃশ্য দূষণও করা যাবে না। রাস্তা ঘাটে প্রার্থীর পোস্টার ব্যানার লাগালে খবর পেলেই খুলে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তাহলে কি প্রার্থীর মুখ দেখান যাবে না? ক্ষমতা আর সাধ্য থাকলে বুদ্ধি থাকলেই উপায় হয়। আর সেই বুদ্ধি বের করেই এবার নির্বাচন কমিশনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মিমির বিজ্ঞাপনে মুখ ঢাকছে যাদবপুর।

আরও পড়ুনঃ রিগিং বন্ধ করে শান্তিপূর্ণ ভোট করাতে ৬টি বিশেষ অ্যাপস আনল নির্বাচন কমিশন

প্রার্থীর প্রচার করে পোস্টার ব্যানার লাগান যাবে না। ২০১৯ লোকসভা ভোটে বেশ কড়া নির্বাচন কমিশন। রাস্তা ঘাটে পোস্টার ব্যানার দেখতে পেলেই খুলে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তাই নতুন বুদ্ধি যাদবপুর তৃণমূল কংগ্রেসের। প্রার্থী টলি নায়িকা মিমি চক্রবর্তী। সুন্দরী প্রার্থীর মুখ দেখান যাবে না, বললেই হল! কিন্তু রয়েছে নির্বাচন কমিশন এর হুঁশিয়ারি। আর শেষ পর্যন্ত এক বুদ্ধিতেই নির্বাচন কমিশনকে কাত করে দিয়েছে যাদবপুর তৃণমূল কংগ্রেস।

আরও পড়ুনঃ রাহুলের নির্বাচনী কেন্দ্র ওয়ানাড ভারতে নাকি পাকিস্তানে, সন্দেহ প্রকাশ অমিতের

প্রার্থীর পোস্টার ব্যানার লাগান যাবে না, কিন্তু অভিনেত্রীর বিজ্ঞাপনে তো মানা নেই নির্বাচন কমিশন এর। ব্যাস, কেল্লা ফতে। তারপরেই সোনা কোম্পানির বিজ্ঞাপনে ঢাকল যাদবপুর। আর তাতে জ্বলজ্বল করছে নায়িকা মিমির মুখ, যিনি আবার যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী। লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থীর ছবি দিয়ে পোস্টার ব্যানার লাগান নিষেধ। কিন্তু নায়িকার মুখ দেখিয়ে বিজ্ঞাপনে তো বারণ নেই!

আরও পড়ুনঃ ভোটের ঠিক আগে রাফাল মামলা নিয়ে চাঞ্চল্যকর নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট

আর এখানেই কেল্লা ফতে করেছে যাদবপুর তৃণমূল কংগ্রেস। নির্বাচন কমিশনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মিমির বিজ্ঞাপনে মুখ ঢাকল যাদবপুর। কিন্তু এখানে নির্বাচন কমিশনের কিছু করার আছে কি? প্রার্থী হিসাবে তো মিমির পোস্টার ব্যানার লাগান হয় নি। মিমির পোস্টার ব্যানার লাগান হয়েছে একটি সোনার কোম্পানির বিজ্ঞাপনে।

আরও পড়ুনঃ মহাজোটের ভরসা আলী হলে বাকিদের ভরসা বজরঙ বলী, মন্তব্য আদিত্যনাথের

যে সোনার কোম্পানির বিজ্ঞাপন করেই থাকেন মিমি। আর সেই সোনার কোম্পানির বিজ্ঞাপনেই ছেয়ে গেছে যাদবপুর এলাকা। এক ঢিলে দু পাখি মেরেছেন মিমি চক্রবর্তী ও যাদবপুর তৃণমূল কংগ্রেস। গোটা যাদবপুরে মিমির মুখ দেখা যাচ্ছে কিন্তু তা প্রার্থী হিসাবে নয়। একটি সোনার কোম্পানির বিজ্ঞাপনে।

আরও পড়ুনঃ প্রতিদিন মেক আপ ও ওয়াক্সিং করে সুন্দর চেহারা করেছেন মোদী, আক্রমণ কুমারস্বামীর

তৃণমূলের তরফ থেকে জানান হয়েছে যে, এই বিজ্ঞাপনের সঙ্গে তাদের দলের বা প্রার্থীর কোন সম্পর্ক নেই। বিজ্ঞাপনদাতারা তাদের বিজ্ঞাপন লাগাতেই পারেন। অন্যদিকে যাদবপুর কেন্দ্রের সিপিএম প্রার্থী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, “এটাও বেআইনি, নির্বাচন কমিশনের অবশ্যই দেখা উচিত”। এখন নির্বাচন কমিশন এই বিজ্ঞাপন নিয়ে কি ব্যবস্থা নেন সেটাই এখন দেখার।

আরও পড়ুনঃ ভোট বুথে গুন্ডাগিরি ও রিগিং রুখতে নির্বাচন কমিশন আনল বিশেষ অ্যাপ

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন