দুদিনের মধ্যে কাশ্মীরে আরও বড় হামলার ছক পাক জঙ্গিদের

397
দুদিনের মধ্যে কাশ্মীরে আরও বড় হামলার ছক পাক জঙ্গিদের/The News বাংলা
দুদিনের মধ্যে কাশ্মীরে আরও বড় হামলার ছক পাক জঙ্গিদের/The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

পুলওয়ামা কাণ্ডই শেষ নয়। পুলওয়ামার চেয়েও আরও বড়সড় হামলার ছক কষেছে পাক জঙ্গি গোষ্ঠীগুলি। ভারতীয় গোয়েন্দা রিপোর্টেই উঠে এসেছে এমন বিস্ফোরক তথ্য। জঙ্গিদের বিভিন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থা, মোবাইলে কথোপকথন শুনে এই নিয়ে যথেষ্ট প্রমাণ পেয়েছে গোয়েন্দারা।

জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী জঙ্গি হামলার সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই চাঞ্চল্যকর ও ভয়ঙ্কর তথ্য উঠে এল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার হাতে। জানা গিয়েছে, পুলওয়ামার থেকেও বড়ো নাশকতার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে জইশ-ই-মহম্মদ। উদ্দেশ্য সাধনে তারা প্রায় ৫০০ কেজি আরডিএক্স বিস্ফোরক মজুত করেছে একটি গাড়িতে। পুলওয়ামার মতোই আবার আত্মঘাতী হামলা হবে আগামী দু দিনের মধ্যে।

আরও পড়ুনঃ ভারতের নদী থেকে একফোঁটাও জল দেওয়া হবে না পাকিস্তানকে

গোয়েন্দাদের কাছে এই তথ্য উঠে এসেছে জইশ নেতা ও কাশ্মীরে থাকা জঙ্গিদের মধ্যে হওয়া মোবাইল কথোপকথনে। জঙ্গিদের ফোনের কথোপকথনেই উঠে এসেছে, ভারতে হামলা চালানোর জন্য গত বছরের ডিসেম্বর মাসেই সীমান্ত পেরিয়ে ঢুকে পড়েছে প্রায় ২১জন ফিদায়েঁ জঙ্গি বা আত্মঘাতী জঙ্গি। এরা যেমন জম্মু কাশ্মীরে হামলা চালাতে পারে, তেমনই দেশের অন্যপ্রান্তও রয়েছে তাদের নিশানায়।

আরও পড়ুনঃ ফের জঙ্গি কার্যকলাপ, কাশ্মীরের সোপিয়ানে শুরু গুলির লড়াই

বিশেষ করে বিভিন্ন রাজ্যের রাজধানীগুলি। গোয়েন্দা সূত্রে আরও খবর, পুলওয়ামা হামলার প্রস্তুতি নিয়ে জইশ-ই-মহম্মদ একটি ভিডিও প্রকাশ করবে। তাতে আত্মঘাতী জঙ্গি আদিল আহমেদ দারকে শহিদের ভুমিকায় দেখানো হবে। এর মাধ্যমে মূলত কাশ্মীরি যুবকদের জঙ্গি দলে টানার চেষ্টা করা হবে। একই সঙ্গে পুলওয়ামা হামলার পর ভারতের ক্রোধ ও ভয়কে আরও বাড়িয়ে তুলতেও পরবর্তী হামলাগুলি চালানো হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ কেন্দ্রীয় সরকারের তিন তালাক অর্ডিন্যান্সে সই রাষ্ট্রপতির

গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, জইশ-এর নেতাদের যোগাযোগের সূত্র ধরেই এই তথ্য তাঁদের হাতে উঠে এসেছে। গোয়েন্দা রিপোর্টে স্পষ্ট করেই জানানো হয়েছে, কাশ্মীরের সিমপওয়ারনি জেলায় চৌকিবল ও তাঙ্গধারের মধ্যে ফের নিরাপত্তাবাহিনীর ওপর আইইডি হামলা চালাতে পারে জঙ্গিরা।

খুব সম্ভবত আগামী দুদিনের মধ্যেই ওই হামলা চালানো হতে পারে। সেই উদ্দেশেই একটি সবুজ রঙের স্করপিও গাড়িতে বিস্ফোরক ভরা হয়ে গিয়েছে বলেও তথ্য উঠে এসেছে গোয়েন্দা রিপোর্টে। ভারতীয় সেনা কর্তৃপক্ষকে গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, নিয়ন্ত্রণরেখার ওপার থেকে ভারতে অনুপ্রবেশের জন্য আরও ৪-৫ জন জঙ্গি অপেক্ষা করছে।

আরও পড়ুনঃ প্রভিডেন্ট ফান্ডে সুদ বাড়িয়ে চাকুরিজীবীদের মুখে হাসি ফোটালেন মোদী

তারা কাশ্মীরের গুরেজ সেক্টরে সীমান্তের ওপার থেকে এ দেশে প্রবেশ করার জন্য প্রস্তুত। তবে শুধু ওই ৪-৫ জন জঙ্গিই নয়, এলাকার কাশ্মীরি যুবকদের সাহায্য নিয়েই তারা আত্মঘাতী হামলা চালানোর পরিকল্পনা নিয়েছে। সূত্রের খবর, ভারতের রাজনৈতিক পরিস্থিতির উপর কড়া নজর রাখছে জইশ-ই-মহম্মদ। পুলওয়ামা হামলা নিয়ে চাপান-উতোরের মধ্যেই ফের একটা বড়সড় হামলা চালাতে পারে তারা।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তান চিনকে ভয় পাইয়ে ভারতীয় বায়ুসেনায় যুক্ত হল তেজস

গত ১৪ ফেব্রুয়ারিতে কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভারতীয় জওয়ানদের হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর কেটে গিয়েছে এক সপ্তাহ। ঘটনার ১০০ ঘণ্টার মাথায় নিকেশ করা হয়েছে হামলার মাস্টারমাইন্ডদের। নরেন্দ্র মোদী ও ইমরান খানের একাধিক হুমকি ও পাল্টা হুমকিতে সরগরম হয়েছে ভারত-পাকিস্তানের রাজনীতি। আর এরপরই ফের একবার উঠে এসেছে জঙ্গিদের হামলার গোপন ছকের খবর। এবার প্রায় ৫০০ কেজি বিস্ফোরক বোঝাই স্করপিও নিয়ে আরও বড় হামলা চালানোর ছক রয়েছে জঙ্গিদের। এমনই দাবি ভারতীয় গোয়েন্দাদের।

আরও পড়ুনঃ চিরশত্রুকে শিক্ষা দিতে ভারত পাক যুদ্ধ চান বাবা রামদেব

পুলওয়ামা কাণ্ডের পর গত ১৬ থেকে ১৭ই ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাশ্মীর থেকে পাকিস্তানে ও পাকিস্তান থেকে কাশ্মীরে একাধিক ফোন কল থেকেই এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছেন গোয়েন্দারা। গোয়েন্দা রিপোর্ট পাবার পরই, দিল্লিতে দফায় দফায় একাধিক বৈঠকে বসছেন জাতীয় উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। যে বৈঠকের মধ্যে অন্যতম বড় ঘটনা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে জাতীয় উপদেষ্টার বৈঠক।

আরও পড়ুনঃ আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো ২১ শে ফেব্রুয়ারী আমি কি ভুলিতে পারি

ফলে ভূস্বর্গ কাশ্মীরে ফের একবার আক্রমণের আশঙ্কায় রীতিমত নিরাপত্তার কড়াকড়ি শুরু হয়েছে। ২১ জন জইশ জঙ্গি গত ডিসেম্বর মাসে ভারতে আসে। তাদের সামনে ৩টি আলাদা আলাদা জঙ্গি হামলার ছক সাজানো ছিল। যার মধ্যে ২টি হামলা কাশ্মীরের বাইরে কোথাও করার পরিকল্পনা করছিল জঙ্গিরা।

এদিকে বৃহস্পতিবার জঙ্গি গোষ্ঠী হিজবুল মুজাহিদ্দিনের তরফে একটি ভিডিও প্রকাশ করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, আর কোনও কাশ্মীরিকে যদি আঘাত করা হয়, তাহলে তার পাল্টা হিসাবে কাশ্মীরের বুকে কর্মরত শ্রমিকদের ছাড়বে না জঙ্গি সংগঠন হিজাবুল মুজাহিদ্দিন! উল্লেখ্য, কাশ্মীরের বাইরে থেকে আসা শ্রমিকদের দিকেই নিশানা রেখেছে হিজবুল।

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন