Election Exclusive: নদিয়ার সব নেতাদের নবান্নে ডেকে ধমকে দিলেন মমতা

1046
Election Exclusive: নদিয়ার সব নেতাদের নবান্নে ডেকে ধমকে দিলেন মমতা/The News বাংলা
Election Exclusive: নদিয়ার সব নেতাদের নবান্নে ডেকে ধমকে দিলেন মমতা/The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

Election Exclusive: কৃষ্ণনগর ও রানাঘাট, নদিয়া জেলার দুটি লোকসভা আসনেই হারার আশঙ্কা স্বয়ং তৃণমূল নেত্রীর মনেও। আর তাই বৃহস্পতিবার নবান্নে ১৪ তলায় জেলার সব নেতাকে ডেকেই রীতিমত ধমকে দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সূত্রে জানা গেছে, সব নেতাকেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ভুলে জেলার দুটি লোকসভা আসনেই জয় পাবার জন্য ঝাঁপিয়ে পরতে বলেছেন দলনেত্রী।

আরও পড়ুনঃ খাস কলকাতায় আবিষ্কার টাকা ও সোনা ভর্তি ২০০টি ভূতুরে লকার

নদিয়া জেলার সব মন্ত্রী, বিধায়ক, প্রাক্তন বিধায়ক, পুরসভার বর্তমান ও প্রাক্তন চেয়ারম্যান, জেলা সভাধিপতি ছাড়াও সব বড় নেতাকেই বৃহস্পতিবার জরুরী ভিত্তিতে ডেকে পাঠান হয় নবান্নে। ডাক দেন স্বয়ং দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জেলা থেকে ছুটে আসেন সব তৃণমূল নেতারাই। নবান্নের ১৪ তলায় প্রত্যেককেই নেত্রীর রোষের মুখে পরতে হয় বলেই জানা গেছে। প্রার্থী ঠিক করেছে দল, প্রত্যেকে ভোটে জেতার জন্য লড়ুন, কড়া নির্দেশ দিয়েছেন মমতা।

আরও পড়ুনঃ বাংলার ভোটে উড়ছে টাকা, ৪২ আসনে নজরদারিতে ৪৪ জন ব্যয় পর্যবেক্ষক

নদিয়ার কৃষ্ণনগর লোকসভা আসনে ২০০৯ ও ২০১৪ সালে জিতে সাংসদ হয়েছিলেন তাপস পাল। এবারে ওই আসনে প্রার্থী মহুয়া মৈত্র। তবে দিদির কানে খবর গেছে মহুয়া মৈত্রকে মেনে নিতে পারেননি জেলার বেশ কিছু নেতা। তাই কৃষ্ণনগর লোকসভায় তলায় তলায় মাটি কাটছেন বেশ কিছু নেতা। দলের মধ্যে এই চোরা স্রোত টের পেয়ে, প্রথমেই তা শেষ করতে উদ্যোগী হলেন মমতা।

আরও পড়ুনঃ সরান হল কে কে শর্মাকে, বাংলার নতুন পুলিশ অবজার্ভার বিবেক দুবে

অন্যদিকে রানাঘাট লোকসভা আসনে এবার প্রার্থী সরস্বতী পুজোর দিন দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন হওয়া সত্যজিৎ বিশ্বাসের স্ত্রী রুপালি বিশ্বাস। এই আসনেও প্রার্থীকে মেনে নিতে পারেননি বেশ কিছু তৃণমূল নেতা। এই খবরও পৌঁছায় দলনেত্রীর কানে। এখানেও প্রত্যেক নেতাকে নবান্নের ১৪ তলায় ডেকে ধমকে দেন মমতা। কোনরকমেই তলে তলে দলের মাটি কাটা, মেনে নেওয়া হবে না বলেই পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন মমতা।

আরও পড়ুনঃ উত্তরপ্রদেশে মহাজোটকে ‘শরাব’ বলে কটাক্ষ নরেন্দ্র মোদীর

শান্তিপুরের বর্তমান বিধায়ক অরিন্দম ভট্টাচার্য ও প্রাক্তন বিধায়ক অজয় দেকেও মমতা নিজের ক্ষোভের কথা জানিয়ে দিয়েছেন বলেই তৃণমূল সূত্রে খবর। ঠিক একই ভাবে সব নেতাকেই রীতিমত ধমকে দেন মমতা। যে সব নেতাদের মধ্যে মুখ দেখাদেখি নেই, তাদেরও সব বিবাদ ভুলে ভোটে ঝাঁপিয়ে পরতে নির্দেশ দেন মমতা। মুখ বন্ধ করে সব নেতারাই চুপচাপ মমতার বকুনি খান বলেই জানা গেছে।

আরও পড়ুনঃ কেন্দ্রে ক্ষমতায় এলে ২ দিনের মধ্যে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করার চ্যালেঞ্জ মমতার

কৃষ্ণনগর লোকসভাতে বিজেপি প্রার্থী ফুটবলার কল্যাণ চৌবে। বহিরাগত প্রার্থী হলেও নিজের স্বচ্ছ ভাবমূর্তির জেরে ও বিজেপির সংগঠনকে কাজে লাগিয়ে এবার তৃণমূলকে যথেষ্ট বেগ দেবেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। অন্যদিকে রাণাঘাটে বিজেপি প্রার্থী মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ ও পেশায় ডাক্তার মুকুটমণি অধিকারী, এলাকার বাসিন্দা অনেকটাই ঘরের ছেলে। সেখানেও বিজেপি-তৃণমূল হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা।

আরও পড়ুনঃ ভোটের আগে স্যাটেলাইট অস্ত্রের ঘোষণা কেন, মোদীর বিরুদ্ধে কমিশনে নালিশ তৃণমূলের

তাই দুটি আসনে কোনোরকম ‘রিস্ক’ নিতে রাজি নন তৃণমূল নেত্রী মমতা। আর তাই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চাপা দিতে সেই দলনেত্রীই এবার নবান্নে ডেকে সমঝে দিলেন নেতাদের। মমতার ভোকাল টনিকে যে কাজ হবে এমনটাই মনে করছে মহুয়া মৈত্র ও রুপালি বিশ্বাস শিবির। তবে নবান্নের ১৪ তলায় বকুনি খাওয়ার পরেও নেতারা ঠিকঠাক ভোটের কাজ করেন কিনা তা নজরে রাখবেন মমতা স্বয়ং, জানা যাচ্ছে তৃণমূল সূত্রে।

আরও পড়ুনঃ নির্বাচন কমিশনের নতুন অ্যাপ সি ভিজিল, জনতার অভিযোগে ১০০ মিনিটের মধ্যে ব্যবস্থা

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন