কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে মোদীর নীতি আয়োগ তুলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন রাহুল

248
কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে নীতি আয়োগ তুলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন রাহুল/The News বাংলা
কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে নীতি আয়োগ তুলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন রাহুল/The News বাংলা
Simple Custom Content Adder

কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে নীতি আয়োগ তুলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেন রাহুল। ফের প্লানিং কমিশন চালু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি। তবে এই নিয়ে বিজেপির তীব্র সমালোচনার মধ্যে পরেছে কংগ্রেস। কংগ্রেস ভুল প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে বলেই অভিযোগ বিজেপির। তবে কংগ্রেস সভাপতি পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন যে, ক্ষমতায় এলে নীতি আয়োগ তুলে ফের প্লানিং কমিশন চালু করা হবে।

আরও পড়ুনঃ লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় বিপুল উত্থান পদ্মের, ইঙ্গিত সমীক্ষায়

“ক্ষমতায় ফিরলে তুলে দেওয়া হবে নীতি আয়োগ”, এমনটাই জানালেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। শুক্রবারই দলের উদ্দেশ্যে রাহুল জানান, কংগ্রেসকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করা হলে নীতি আয়োগ তুলে দিয়ে তার বদলে পুনরায় প্ল্যানিং কমিশন চালু করা হবে। ৫ বছরের পরিকল্পনা কমিশনই ভারতের উন্নতির আধার বলে জানিয়েছেন রাহুল।

আরও পড়ুনঃ মোদীর ব্রিগেড সভার অনুমতি নির্বাচন কমিশনে পাঠিয়ে দিল সেনা

ট্যুইটারে এই বিষয়ে তিনি লেখেন, “নীতি আয়োগ শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিজ্ঞাপন ও মার্কেটিং করা ছাড়া সামান্য কিছু বিনিয়োগ সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করেছে”। এর বাইরে নীতি আয়োগের কোনো উপকারিতা সাধারণ জনগন লাভ করতে পারেনি বলে তিনি জানান। তার চেয়ে বিগত পরিকল্পনা কমিশনগুলিই দেশের উন্নতির জন্য সবচেয়ে বেশি কাজে লেগেছে বলেই উল্লেখ করেন তিনি।

আরও পড়ুনঃ ৬ বারের জয়ী সিপিএম সাংসদের বাড়িতে অর্জুন, শুরু জল্পনা

তিনি আরও উল্লেখ করেন, “কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে নীতি আয়োগ তুলে দিয়ে পুনরায় প্ল্যানিং কমিশন হবে। যা ১০০ জনের কম সদস্য বিশিষ্ট হবে”। প্ল্যানিং কমিশন চালনা করবেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদরা, বলে তিনি মন্তব্য করেন। এর ফলে ফের দেশের উন্নতি সঠিক রাস্তায় আসবে বলেই জানান তিনি।

আরও পড়ুনঃ মোদীর মিশন শক্তির ঘোষণায় নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘন হয়নি, জানিয়ে দিল কমিশন

উল্লেখ্য, ১৯৫০ সালেই তৎকালীন কংগ্রেস সরকার গঠন করেছিল প্ল্যানিং কমিশন। ২০১৫ সালে বিজেপি সরকার প্ল্যানিং কমিশন তুলে দিয়ে চালু করে নীতি আয়োগ। রাহুল গান্ধী সেই পুরোনো প্ল্যানিং কমিশনকেই ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিলেন। রাহুল জানান, নীতি আয়োগ শুধুই মোদীর প্রচার ছাড়া আর কিছুই নয়।

আরও পড়ুনঃ ভোটের মধ্যেই নারদ মামলায় তৃণমূল নেতাদের চার্জশিট দেবে সিবিআই, খুশি পদ্ম শিবিরে

তাই ক্ষমতায় এলে সেই পুরনো প্ল্যানিং কমিশন বা পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনাতেই ফিরতে চায় কংগ্রেস, বলে ঘোষণা করেন রাহুল। তবে অর্থনীতিবিদরাও এই ইস্যুতে দ্বিধাবিভক্ত। কেউ সমর্থন করেছেন রাহুলকে। কেউ নীতি আয়োগ ছেড়ে ফের পিছনে তাকাতে রাজি নন। সবমিলিয়ে ভোটের বাজারে অর্থনীতি মহলে একটা ঝড় তুলে দিতে পেরেছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী।

আরও পড়ুনঃ খোদার কসম মোদীকে জেলে ঢোকাবো, এনসি নেতা জাভেদ রানার মন্তব্যে উত্তাল দেশ

তবে এই ইস্যু ভোটের বাজারে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে কতটা প্রভাব ফেলতে পারবে তা নিয়ে সন্দিহান রাজনৈতিক মহল। এই ইস্যু দেশের অর্থনৈতিক মহলেই আটকে থাকবে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। একই মত দেশের অর্থনীতিবিদদেরও। ভোটারদের সিংহভাগ এই ইস্যু বুঝবেন না! তাহলে কাদের জন্য রাহুল এটাকে নির্বাচনী ইস্যু বানালেন? উঠেছে প্রশ্ন।

আরও পড়ুনঃ পাক জঙ্গিদের সাহায্যকারি দেশের বিশ্বাসঘাতকদের খুঁজতে ৮ সদ্যসের গোয়েন্দা দল

আপনার মোবাইলে বা কম্পিউটারে The News বাংলা পড়তে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ।

Comments

comments

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন